| ৩রা এপ্রিল, ২০২০ ইং | ২০শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ৯ই শাবান, ১৪৪১ হিজরী | শুক্রবার

সাবধান না হলে লাশের মিছিল যে কত লম্বা হবে আল্লাহ ছাড়া কেউ জানেন না: আজহারী

Print Friendly, PDF & Email

আইন সমাজ ডেক্স, ২৪ মার্চ ২০২০ মঙ্গলবার :

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ থেকে বাঁচতে দেশবাসীকে আরও সচেতন হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন জনপ্রিয় ইসলামী বক্তা মিজানুর রহমান আজহারী।

তিনি বলেছেন, করোনা নিয়ে এখনও সাবধান না হলে লাশের মিছিল যে কত লম্বা হবে আল্লাহ ছাড়া কেউ জানেন না।

সোমবার করোনা পরিস্থিতি নিয়ে নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে দেয়া এক স্ট্যাটাসে আজহারী এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, পুরো দেশ খুব দ্রুততম সময়ের মধ্যে লকডাউনে চলে যাওয়া উচিত। সরকারকে এখন হার্ডলাইনে যেতে হবে। জনগণ কথা শুনবে না– এটিই স্বাভাবিক। তাই আইন প্রয়োগের মাধ্যমেই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে হবে।

আজহারী বলেন, পুরো দেশ লকডাউনে চলে গেলে দিন আনে দিন খায় এ রকম খেটে খাওয়া মানুষদের জীবিকার ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে। সে ক্ষেত্রে সমাজের বিত্তশালী লোকজন, বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন ও সরকারকে একযোগে কাজ করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, এ দেশের একটি অঘোষিত নিয়ম হলো-প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে বিশেষ আদেশ না এলে দেশের হর্তাকর্তারা নড়েচড়ে ওঠেন না। এটি একটি বড় সমস্যা। করোনা মহামারীকে ডেঙ্গুর মতো মনে করলে অথবা ‘আমরা করোনার চেয়ে অনেক শক্তিশালী’– এ রকম দায়িত্বজ্ঞানহীন মন্তব্যের ফুলঝুড়ি চলতে থাকলে পুরো জাতির কপালে মহাদুর্গতি আছে।’

জনপ্রিয় এই বক্তা বলেন, আমরা প্রায় তিন মাসের মতো একটা লম্বা সময় পেয়েছি। এ দীর্ঘ সময়ে অন্যান্য আক্রান্ত দেশ থেকে যদি আমরা শিক্ষা না নিই এবং সংকট উত্তরণে তাদের অভিজ্ঞতা যদি কাজে না লাগাই, তা হলে আল্লাহ নিজে এসে কিছু করে দিয়ে যাবেন না। এটিই আল্লাহর নিয়ম বা সুন্নাহ। বাঁচতে হলে আমাদেরই সাবধানে থাকতে হবে।

‘‘কোরআন বলছে- ‘আল্লাহতায়ালা ততক্ষণ কোনো জাতির অবস্থার পরিবর্তন ঘটান না, যতক্ষণ না তারা নিজেরা তাদের অবস্থার পরিবর্তনের চেষ্টা করে’। [সুরা আল রা’দ, আয়াত: ১১]।’’

প্রবাসীদের উদ্দেশে আজহারী বলেন, সবচেয়ে বেশি যেটি দরকার তা হলো সেলফ আইসোলেশন। বিশেষ করে বিদেশফেরত প্রবাসীদের বুঝিয়ে অথবা সামাজিকভাবে চাপ প্রয়োগ করে হলেও তাদের হোম কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করা। কোয়ারেন্টিন মানে হচ্ছে– সবার থেকে আলাদা হয়ে থাকা এবং কারও সংস্পর্শে না আসা।

‘‘কিন্তু সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে দেখা যাচ্ছে যে, দেশে এসে উনারা দিব্যি মনের আনন্দে ঘুরে বেড়াচ্ছেন, কেউ কেউ শ্বশুরবাড়ি বেড়াতে যাচ্ছেন এবং অনেকে বিয়ের দাওয়াতেও অংশগ্রহণ করছেন।’’

তিনি আরও বলেন, দেশে অবস্থানরত প্রিয় প্রবাসী ভাইয়েরা, আপনারা দেশের জন্য অনেক কিছু করেছেন। আপনাদের পরিশ্রমের টাকায় সচল থাকে আমার দেশের অর্থনীতির চাকা। এত কিছু করার পরও সঠিক সময়ে সঠিক রেসপন্সটুকু করতে ব্যর্থ হচ্ছেন আপনারা। আল্লাহর ওয়াস্তে সদ্য বিদেশফেরত ভাইবোনেরা বাসায় থাকুন। মানুষের সঙ্গে মেশা থেকে বিরত থাকুন। নিজে বাঁচুন, প্রিয়জনদের বাঁচান। পূর্ব থেকেই সাবধানতা অবলম্বন করা, এটি আল্লাহর আদেশ।

‘‘এ আদেশ স্বেচ্ছায় অমান্য করে আল্লাহর কাছে দোয়া করে কোনো লাভ নেই। কোরআন বলছে- ‘হে ইমানদারগণ তোমরা আগে থেকেই সাবধানতা ও সতর্কতা অবলম্বন করো’। [সুরা নিসা, আয়াত: ৭১।’’

জনপ্রিয় এই বক্তা বলেন, তাই সময় থাকতে সাবধান হোন। তা না হলে জ্যামিতিক হারে বাড়তে বাড়তে এ মহামারী এমন অবস্থায় পৌঁছবে, তখন লাশের মিছিল যে কত লম্বা হবে আল্লাহ ছাড়া কেউ জানেন না।

‘‘আবার বলছি– প্লিজ ঘরে থাকুন। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কেউ বাইরে বের হবেন না। আল্লাহতায়ালা আমাদের সবাইকে এই কঠিন বিপদ থেকে হেফাজত করুক। আমিন।’’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *