| ২৪শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ইং | ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ২৯শে জমাদিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরী | সোমবার

মুরাদপুরে যুগান্তর সাংবাদিককে কেন্দ্র থেকে বের করে দিল পুলিশ

মুরাদপুর আদর্শ উচ্চবিদ্যালয়। ছবি: সংগৃহীত

Print Friendly, PDF & Email

আইন সমাজ ডেক্স, ১ ফেব্রুয়ারী ২০২০ শনিবার :

ঢাকার সিটি নির্বাচনে পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় পুলিশের হাতে লাঞ্ছনার শিকার হয়েছেন দৈনিক যুগান্তরের গেণ্ডারিয়া প্রতিনিধি আল ফাতাহ মামুন।

শনিবার ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ৫২ নাম্বার ওয়ার্ডের মুরাদপুর আদর্শ উচ্চবিদ্যালয়ে নির্বাচনের খবর সংগ্রহ করতে গেলে সেখানে দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যদের হাতে হেনস্তার শিকার হন তিনি।

গেণ্ডারিয়া প্রতিনিধি আল ফাতাহ মামুন বলেন, ‘শনিবার দুপুরের দিকে পেশাগত দায়িত্ব পালনের অংশহিসেবে আমি মুরাদপুর আদর্শ উচ্চবিদ্যালয় কেন্দ্রে সংবাদ সংগ্রহের জন্য প্রবেশ করতে চাইলে গেটে দায়িত্বরত কদমতলী থানার সিপাহী শাকিল ও নাহিদ বাধা দেন। তারা বলেন, এখানে সাংবাদিক ঢুকা নিষেধ। পরে এসআই রফিক এসেও একই কথা বলেন। তিনি বলেন, ভেতরে ঢুকতে চাইলে এই ওয়ার্ডের দায়িত্বরত ম্যাজিস্ট্রেটের অনুমতি নিয়ে আসেন।’

পুলিশের অনুমতি না পেয়ে দায়িত্বরত ম্যাজিস্ট্রেট ফাহমিদা ইসলামের কাছে গেলে তিনি বলেন, ‘এ ব্যাপারে আমার অনুমতির কিছু নেই। সাংবাদিকদের ঢোকার জন্য তো নির্বাচন অফিস থেকে অনুমতিপত্র দেয়াই হয়েছে।’

দ্বিতীয়বার কেন্দ্রে প্রবেশ করার সময় ওই দুই সিপাহী গেণ্ডারিয়া প্রতিনিধিকে লাঞ্ছিত করে কেন্দ্রের গেট থেকে বের করে দেয়।

ঘটনা সম্পর্কে সাংবাদিক আল ফাতাহ মামুন বলেন, ‘দ্বিতীয়বার যখন ঢুকতে চাইলাম তখন ওই দুই সিপাহী আমাকে টেনে-হেঁছড়ে গেট থেকে বের করে দেয়। এ সময় তারা মারমুখো অঙ্গভঙ্গী দেখায়। মুহূর্তেই চারদিকে মানুষ জড়ো হয়ে যায়।’

সাংবাদিক আল ফাতাহ মামুন আরও বলেন, ‘মানুষ জড়ো হয়ে গেলে কদমতলী থানার সাব-ইন্সপেক্টর আব্বাস ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। তাকে সব খুলে বললে তিনি বলেন, ওরা মুর্খ ছেলে-পেলে, ওদের কথা ধরে লাভ নেই। এ সব ছোটখাটো বিষয়ে সাংবাদিকরা মনে রাখলে চলে না।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *